কার্তিকের ধানের খেতে….. হেমন্তের আগমন
সোনার ধান জুড়ায় প্রাণ (দ্বিতীয় পর্ব)
কলমে- লক্ষ্মণ ভাণ্ডারী

মাঠে মাঠে সোনা ধান শুনি হেমন্তের গান
কার্তিকের নবান্নের খেতে,
সকালে শিশির ঝরে রোদে ঝিক মিক করে
প্রভাত হাওয়া উঠে মেতে।

 

মেঠো পথ ধারে ধারে গরুগাড়ি সারে সারে
ধান নিয়ে চলে নিজ বাড়ি,
চাষী চলে নিজ গাঁয় ধান নিয়ে বাড়ি যায়,
রাঙাপথ বাম পাশে ছাড়ি।

 

নয়ন দিঘির ঘাটে ছেলেরা সাঁতার কাটে
পল্লীবধূ জল নিতে আসে,
দিঘির ঘাটের কাছে মরাল মরালী পাছে
দিঘিজলে সারাদিন ভাসে।

 

অজয় নদীর কাছে প্রাচীন বটের গাছে
পাখি সব গান গায় সুরে,
মাঠে মাঠে সোনা ধান বাউলেরা গাহে গান
ভাসে সুর দূর হতে দূরে।

 

নদীঘাটে পড়ে বেলা সাঙ্গ দিবসের খেলা
পশ্চিমের পানে সূর্যি ঢলে,
নামে আঁধারের কালো জোনাকিরা দেয় আলো
অজয় তটিনী বয়ে চলে।